360 x 130 ad code [Sitewide - Site Header]

৬১ পেরিয়ে ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল

Share via email

মাহিদ সালাম, ভারপ্রাপ্ত বার্তা সম্পাদকঃ

62th birthday of zafor sir

৬২ তম জন্মদিনে ছবিঃ সংগৃহীত

 zafor-sirবাংলা ভাষায় সায়েন্স ফিকশনের প্রবাদপুরুষ লেখক এবং বাংলাদেশে সায়েন্স ফিকশন জনপ্রিয়করণের পথিকৃৎ স্বনামধন্য কথাসাহিত্যিক, গবেষক ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের(শাবিপ্রবি) শিক্ষক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল ২৩শে ডিসেম্বর, সোমবার স্বজন ও শুভানুধ্যায়ীদের শুভেচ্ছায় ৬২ তম জন্মদিন অতিবাহিত করেন।

অধ্যাপক জাফর ইকবাল বলেন, সকাল থেকে সবাই আসছে, শুভেচ্ছা জানাচ্ছে, সবাই মিলে আনন্দ করছে। তাই সবার অনেক অনেক ভালবাসা উপভোগ করছেন। ‘শিশু কিশোররা দলে দলে এসে শুভেচ্ছা জানাচ্ছে’- এতেই আজকের দিনটা একটু আলাদা মনে হচ্ছে বলে জানান শিশুসাহিত্যের এই জনপ্রিয় লেখক।

১৯৫২ সালের ২৩ শে ডিসেম্বর সিলেটের মিরাবাজারে জন্মগ্রহণ করেন প্রতিভাবান এই মানুষটি। পুলিশ বড় কর্তা বাবা শহীদ ফয়জুর রহমান আহমদ ও মা আয়েশা ফয়েজের এক ছেলে ও এক মেয়ের পর তৃতীয় সন্তান জাফর ইকবাল পিতার চাকরির সুবাদে ছেলেবেলার অনেকটাই কেটেছে বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায়। তার বড় ভাই বাংলাদেশের জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক এবং নাট্য ও চলচ্চিত্রনির্মাতা হুমায়ুন আহমদ। বাবার লেখালেখির চর্চা ও পরিবারের সাহিত্যমনস্ক আবহাওয়ার কারণে তিনি খুব অল্প বয়সেই লিখতে শুরু করেন। সাত বছর বয়সে প্রথম সায়েন্স ফিকশন লিখেন তিনি। জাফর ইকবাল ১৯৬৮ সালে বগুড়া জিলা স্কুল থেকে এসএসসি এবং ১৯৭০ সালে ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে তার বাবা শহীদ ফয়জুর রহমান আহমদকে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী গুলি করে হত্যা করে। দেশ স্বাধীন হবার পর বাবার কবর খুঁড়ে তাঁর মাকে স্বামীর মৃত্যুর খবর তাঁকেই নিশ্চিত করতে হয়।

zafor-sir1তিনি ১৯৭২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হন। ড. জাফর ইকবাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭৫ সালে স্নাতক ও ১৯৭৬ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৭৬ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যান। তাঁর বিষয় ছিল – ‘Parity violation in Hydrogen Atom. সেখানে পিএইচডি করার পর বিখ্যাত ক্যালটেক থেকে তার পোস্টডক গবেষণা সম্পন্ন করেন। ১৯৮৮ তে তিনি বিখ্যাত বেল কমিউনিকেশনস রিসার্চে(বেলকোর) গবেষক হিসাবে যোগদান করেন এবং ১৯৯৪ পর্যন্ত সেখানেই কাজ করেন। যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন তার সহপাঠী ড. ইয়াসমিন হকের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।

তাঁর বড় ছেলে নাবিল ইকবাল যুক্তরাষ্ট্রের কলোনেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদার্থবিজ্ঞান ও গণিতে স্নাতক সম্পন্ন করে বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনলজিতে পদার্থবিজ্ঞানে পিএইচডি করছেন এবং কন্যা ইয়েশিম ইকবাল কলোনেল বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক সম্পন্ন করে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে মনোবিজ্ঞানে পিএইচডি করছেন। ১৯৯৪ সালে আমেরিকা থেকে দেশে ফিরে তিনি যোগদান করেন দেশের প্রথম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাবিপ্রবিতে কম্পিউটার সায়েন্স এণ্ড টেকনোলজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে।  তিনি একাধিকবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য মনোনীত হন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতি নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। তিনি এক সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সংগঠন শিক্ষক সমিতির সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন। বর্তমানে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স এণ্ড টেকনোলজি বিভাগের অধ্যাপক এবং তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক্স প্রকৌশল(ইইই) বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কর্মরত আছেন।

২০১২ সালে শাবি ক্যাম্পাসে ৬১তে পা দেয়ার মুহূর্তের উদযাপন; ছবিঃ ফেসবুক

২০১২ সালে শাবি ক্যাম্পাসে ৬১তে পা দেয়ার মুহূর্তের উদযাপন; ছবিঃ ফেসবুক

সাপ্তাহিক বিচিত্রায় জাফর ইকবাল বিশ্ববিদ্যালযয়ের ছাত্র থাকাকালীন প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল সায়েন্স-ফিকশন গল্প কপোট্রনিক ভালোবাসা । গল্পটি পড়ে একজন পাঠক দাবি করেন সেটি বিদেশি গল্প থেকে চুরি করা। এর উত্তর হিসেবে তিনি একই ধরণের বেশ কয়েকটি বিচিত্রার পরপর কয়েকটি সংখ্যায় লিখে পাঠান। তার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালে এই গল্পগুলো নিয়ে কপোট্রনিক সুখদুঃখ নামে একটি বই প্রকাশিত হয়। এই বইটি পড়ে শহীদ জননী জাহানারা ইমাম খুবই প্রশংসা করেন এবং এই ঘটনায় তিনি এধরণের আরো বই লিখতে উৎসাহিত হন। তার প্রথম দিকের বিজ্ঞান কল্পকাহিনীগুলো পাঠকমহলে সমাদৃত হয়। সুদূর আমেরিকাতে বসে তিনি বেশ কয়েকটি সায়েন্স-ফিকশান রচনা করেন। দেশে ফিরে এসেও তিনি নিয়মিত বিজ্ঞান-কল্পকাহিনী লিখে যাচ্ছেন, প্রতি বইমেলাতে তার নতুন সায়েন্স ফিকশান কেনার জন্যে পাঠকেরা ভীড় জমায়। তিনি কিশোর উপন্যাসের লেখক হিসেবেও অত্যন্ত সফল। এই শাখাতেই তার প্রতিভা সর্বোচ্চ শিখর ছুঁয়েছে। তার লেখা অনেকগুলো কিশোর উপন্যাস বাংলা কিশোর-সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছে। একটি জরিপের তথ্য অনুসারে, তিনি বাংলাদেশের কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে লেখক হিসেবে জনপ্রিয়তার শীর্ষে। জরিপে ৪৫০ জনের মধ্যে ২৩৫জনই (৫২.২২%) তাঁর পক্ষে মত দিয়েছে। তার একাধিক কিশোর উপন্যাস থেকে চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে।

'দীপু নাম্বার টু' উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত চলচ্চিত্রের একটি দৃশ্য

‘দীপু নাম্বার টু’ উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত চলচ্চিত্রের একটি দৃশ্য

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন সময়ে তিনি পত্রিকায় কার্টুন আঁকতেন। বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিজ্ঞানবিষয়ক অনুষ্ঠানে নিয়মিত অংশগ্রহণ করতেন। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড গড়ে তোলার পিছনে তাঁর অসামান্য অবদান রয়েছে। স্কুলপর্যায়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে গণিত শিক্ষাকে জনপ্রিয় করতে তিনি অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদের সাথে “নিউরনে অনুরণন” ও “নিউরনে আবারো অনুরণন” বই দুটি রচনা করে গণিতকে শিক্ষার্থীদের মাঝে জনপ্রিয় করে তুলেন। ফলশ্রুতিতে বাংলাদেশ বর্তমানে প্রতিবছর আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে নিয়মিতভাবে অংশগ্রহণ করছে।jafor sir2.jpg_480_480_0_64000_0_1_0

তাঁর স্বাধীনতা-বিরোধী ও ধর্মীয় মৌলবাদের বিরুদ্ধে সরাসরি মত প্রকাশ এবং প্রগতিশীল চিন্তাধারার ধারক হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক সাহিত্য ও সংস্কৃতিসেবী ছাত্র সংগঠনের উপদেষ্টা হিসেবে অবস্থান বিভিন্ন সময় প্রতিক্রিয়াশীলদের রোষানলে পড়েছে। তাঁর রাজনৈতিক সচেতনা এবং দেশপ্রেমের পরিচয় পাওয়া যায় তাঁর  বৈশিষ্ট্যসূচক সহজ ভাষায় লেখা ‘সাদাসিধে কথা’ কলামগুলোতে।road_painting-zafor sir

ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল সায়েন্স ফিকশন ও কিশোরোপন্যাসের পাশাপাশি অনেক ছোটগল্প, উপন্যাস, শিশুতোষ বই, গণিত ও বিজ্ঞান বিষয়ক সংকলন, ভ্রমণ ও স্মৃতিচারণ, ভৌতিক উপন্যাস প্রভৃতি রচনা করেছে। তিনি ইতিমধ্যে বিভিন্ন পুরস্কার ও সম্মানে ভূষিত হয়েছেন।

তিনি এবছর তার ৬১তম জন্মদিনে অনাড়ম্বরভাবে তার ঢাকার বাসায় জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে আসা স্বজন আর শুভানুধ্যায়ী এবং আগত বিভিন্ন শিশুদের সাথে সময় কাটান। গতবছর তাঁর ষাট বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে শাবিপ্রবি ক্যাম্পাসের সকলে তার সাথে ৬০ পাউণ্ডের কেক কেটে জন্মদিনের আনন্দক্ষণ উদযাপন করেছিলেন।

একষট্টি বছর পেরিয়ে বাষট্টিতে পা দেয়া ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল এখনো যথেষ্ট প্রাণবন্ত ও তারুণ্যের অধিকারী। তিনি প্রতিনিয়তই স্বপ্ন দেখেন এদেশের তরুণেরাই এদেশকে সঠিকপথে নিয়ে যাবে আর অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকবে। আর এজন্য তিনি প্রতিনিয়তই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্ধুদ্ধ হতে তরুণদেরকে অনুপ্রাণিত করেন।

সাস্টনিউজ২৪ ডটকম এর উপদেষ্টা ও অভিভাবক ডঃ মুহাম্মদ জাফর ইকবাল স্যার কে তাঁর ৬২তম জন্মদিনে অকৃত্রিম ভালোবাসা ও শুভেচ্ছা।

Share via email

ক্যাটাগরি অনুযায়ী সংবাদ

এই সংবাদটি ২৪ ডিসেম্বর ২০১৩ইং, মঙ্গলবার ২টা ৫৭মিনিটে অন্যান্য, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল, ডক্টর মুহম্মদ জাফর ইকবাল, তড়িৎ প্রকৌশল (EEE), প্রিয় মুখ, শিক্ষক সমিতি, শীর্ষ সংবাদ, সর্বশেষ, সাহিত্য ও সংস্কৃতি ক্যাটাগরিতে প্রকাশিত হয়। এই সংবাদের মন্তব্যগুলি স্বয়ঙ্ক্রিয় ভাবে পেতে সাবস্ক্রাইব(RSS) করুন। আপনি নিজে মন্তব্য করতে চাইলে নিচের বক্সে লিখে প্রকাশ করুন।

Leave a Reply

300 x 250 ad code innerpage

Recent Entries

120 x 200 [Sitewide - Site Festoon]
প্রধান সম্পাদক: সৈয়দ মুক্তাদির আল সিয়াম, বার্তা সম্পাদক: আকিব হাসান মুন

প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার প্রধান সম্পাদকের। Copyright © 2013-2017, SUSTnews24.com | Hosting sponsored by KDevs.com