360 x 130 ad code [Sitewide - Site Header]

শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে ছাত্রলীগের ১২ নেতাকর্মী বহিষ্কার : ক্যাম্পাসে চাপা উত্তেজনা

Share via email

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে শাখা ছাত্রলীগের ১২ নেতা-কর্মীকে বহিষ্কার করেছে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নিবার্হী সংসদ।

আজ বুধবার দুপুরে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ বহিষ্কার আদশে জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য আবু সাঈদ আকন্দ (শাবি শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি) ও সাজিদুল ইসলাম সবুজকে (শাবি শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক) সংগঠন থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়। অন্যদিকে শাবি শাখার সহ-সভাপতি সৈয়দ জুয়েম, যুগ্ম সধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম অন্তু, সাংগঠনিক সম্পাদক দোলন আহমেদ, উপ মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক লক্ষণ চন্দ্র বর্মণ, সদস্য মুনকির কাজি, তৌফিকুর রহমান তন্ময়, বাসির মিয়া, কর্মী মেহের উদ্দিন হিমেল, রায়হান আহমেদ, শরিফুল ইসলাম দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তবে তারা স্থায়ী না অস্থায়ী বহিষ্কার তা উল্লেখ করা হয়নি।

তদন্ত ছাড়া হঠাৎ করে ‘আজীবন বহিষ্কার করার’ কারণ সম্পর্কে বিজ্ঞপ্তিতে কিছু বলা হয়নি। তবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন সংবাদ সংস্থা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়টিতে যখনই কোনো ঘটনা ঘটে তখনই এদের নাম আসে। বারবার এদেরই নাম আসে। ছাত্রলীগকে সুন্দর, সুশৃঙ্খল করতে আমরা এসব পদক্ষেপ নিচ্ছি।”

মঙ্গলবারের সংঘর্ষের ঘটনায় তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক সাইফ বাবু বলেন, “মঙ্গলবারের  সংঘর্ষের ঘটনায় বহিষ্কৃতরা জড়িত ছিলেন। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে তাদের বহিষ্কর করা হয়েছে।” বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কোন দুষ্কৃতকারীকে প্রশ্রয় দেয়না বলে জানান তিনি।

এদিকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে বুধবার শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি তারিকুল ইসলাম তারেক বাদী হয়ে ১০ জনের নাম উল্লেখ করে আরো ১০-১২ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে জালালাবাদ থানায় এ মামলা (মামলা নং-১৭) দায়ের করেন। জালালবাদ থানরা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  (ওসি) শফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মামলায় আসামীরা হলেন, শাখা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সাইদ আকন্দ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজিদুল ইসলাম সবুজ, সাংগঠনিক সম্পাদক দোলন আহমদ, সহ-সভাপতি সৈয়দ জুয়েম, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম অন্তু, উপ-মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক লক্ষণ চন্দ্র বর্মন, সদস্য মুনকির কাজী, কাজী তৌফিকুর রহমান তন্ময়, মুস্তাাফিজুর রহমান খান এবং বাসির মিয়া। তাদের মধ্যে একমাত্র মুস্তাফিজুর রহমান খান ছাড়া বাকি সবাইকে ঘটনার প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ বহিস্কার করেছে। (সূত্র- প্রতিদিনের সংবাদ)

অপরদিকে, বুধবার বিকেল ৫ টায় শাবিপ্রবি প্রেসক্লাবে নিজেদের নির্দোষ দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বহিস্কৃতরা। এসময়  শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি সৈয়দ জুয়েম লিখিত বক্তব্যে বলেন, গতকালের ঘটনার প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ বারজন নেতাকর্মীকে  বহিস্কার করেছে। অথচ অমরা কেউই ঘটনাস্থলে ছিলাম না। আমরা আশা করি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ অতি দ্রুত সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের বিচার এবং নির্দোষদের দায় মুক্তি দেবে।’

তারা আরও অভিযোগ করেন, আমাদের বিষয়ে কেন্দ্রকে ভুল বার্তা দেয়া হয়েছে। এই ইউনিট যারা পরিচালনা করছেন তারা অযোগ্য। সভাপতি ফাওখোড় ও নানা অপকর্মের হোতা, আর সাধারণ সম্পাদক অছাত্র। এছাড়া তারেক অছাত্র, মাদক ব্যবসায়ী ও ছাত্রদলের পৃষ্ঠপোষক এমন অভিযোগ করেন তারা।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের পার্শ্ববর্তী সাতকরা রেস্টুরেন্টে সাঈদ-সবুজের অনুসারীদের বিরুদ্ধে তারিকুলের উপর হামলা এবং অন্যদিকে তারিকুলের বিরুদ্ধে সাঈদ-সবুজের অনুসারীদের উদ্দেশ্যে গুলি করার অভিযোগ উঠে। এতে এস এম আব্দুল্লাহ রণি নামের এক শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ হন।

সংঘর্ষের আগে রেস্তোরাঁয় রাতের খাবার খেতে আসা কয়েকজন শিক্ষার্থী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, তরিকুল ইসলাম রেঁস্তোরায় বসে আড্ডা দিচ্ছিলেন। এ সময় সাইদ-সবুজের অনুসারীরা গিয়ে তার সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়ান। তারা তরিকুলের গায়ে হাত তুললে তরিকুল পিস্তল বের করে এলোপাতাড়ি গুলি করেন।

ক্যাম্পাসের বর্তমানে কিছুটা চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। রাত ৯ টার দিকে তারিকুল ইসলামের পক্ষে শাহপরান হলের মূল ফটক তালাবদ্ধ করে ভেতরে সশ্রস্ত্র অবস্থান নেয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রুহুল আমিন ও সাধারণ সম্পাদক ইমরান খানের অনুসারীরা।অন্যদিকে বহিস্কৃত নেতা আবু সাঈদ আকন্দ ও সাজিদুল ইসলাম সবুজের অনুসারী নেতাকর্মীরা হলের বাইরে অবস্থান করে। পরবর্তীতে হলে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সোয়া ১১ টার দিকে বিদ্যুৎ চলে আসে। এই মূহুর্তে রুহুল ও ইমরান গ্রুপ শাহপরান হলে, সাঈদ ও সবুজ গ্রুপ বঙ্গবন্ধু হলে এবং দুই হলের মাঝখানে পুলিশ অবস্থান নিয়েছে।

Share via email

ক্যাটাগরি অনুযায়ী সংবাদ

এই সংবাদটি ২১ মার্চ ২০১৮ইং, বুধবার ২৩টা ৩১মিনিটে ছাত্রলীগ, রাজনীতি, শীর্ষ সংবাদ, সর্বশেষ ক্যাটাগরিতে প্রকাশিত হয়। এই সংবাদের মন্তব্যগুলি স্বয়ঙ্ক্রিয় ভাবে পেতে সাবস্ক্রাইব(RSS) করুন। আপনি নিজে মন্তব্য করতে চাইলে নিচের বক্সে লিখে প্রকাশ করুন।

Leave a Reply

120 x 200 [Sitewide - Site Festoon]
প্রধান সম্পাদক: সৈয়দ মুক্তাদির আল সিয়াম, বার্তা সম্পাদক: আকিব হাসান মুন

প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার প্রধান সম্পাদকের। Copyright © 2013-2017, SUSTnews24.com | Hosting sponsored by KDevs.com