360 x 130 ad code [Sitewide - Site Header]

ক্যাম্পাস রক্ষার দায়িত্ব আমাদের সকলের

Share via email

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করতে টাকা লাগে না, যদিও প্রধান ফটকে সাইনবোর্ড টাঙানো আছে, “সর্ব সাধারণের প্রবেশ নিষেধ “। কিন্তু কেউ তা মানছে না, আর প্রশাসন ও কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না। সুতরাং শহরের যেকোন মানুষ এটাকে পার্কে মনে করে এবং যখন ইচ্ছা তখন ঘুরতে চলে আসে।

আমার ক্যাম্পাস আমি নিরাপদ রাখবো, কিন্তু সাস্ট ক্যাম্পাসে চোখের সামনে অনেক কিছুই ঘটে যায়। প্রায় দশ হাজার শিক্ষার্থীর  অনেকের সামনে অনেক কিছু ঘটলেও তারা কিছু বলি না।

যেমন (১) কিছুদিন আগে দেখলাম ১ কিলো দিয়ে স্কুল ড্রেস পরা কিছু ছেলে সিগারেট খেয়ে যাচ্ছে, তাদেরকে দাঁড় করিয়ে জিজ্ঞেস করলাম বাড়ি কই?? কোন ক্লাসে পড়??

ভার্সিটি গেইটে বাড়ি, ক্লাস টেনে পড়ে।

আমি বললাম ক্যাম্পাসে তো সিগারেট খাওয়া তো নিষিদ্ধ, তাছাড়া তোমরা মাত্র ক্লাস টেনে পড়। এই অবস্থায়ই এরকম করছো??

সে উত্তর দিল অমুক হলে তমুক ভাই থাকেন, যার সাথে আমার খাতির আছে। প্রচণ্ড রাগ হয়েছিল, তবুও তাকে যতটুকু পারি বুঝিয়েছি, পরে তারা লজ্জা পেয়ে মাথা নিচু করে এবং সরি বলে চলে যায়।

 

(২) শহীদ মিনারের ফুচকা দোকানে বসে আছি, দেখলাম শহীদ মিনার থেকে ছোট একটি ছেলে নামছে, স্কুল ড্রেস পরা, ডাক দিলাম, সে ক্লাস ৪ এ পড়ে, সাথে পিচ্চি একটা মেয়ে, সে ক্লাস ৩ তে পড়ে।।

জিজ্ঞেস করলাম সে তুমার কি হয়??

তাছাড়া স্কুলের টাইমে এখানে কি কর দুজনে??

উত্তর দিল মেয়েটা তার মামাতো বোন। ঘুরতে আসছে স্কুল ফাকি দিয়ে।

ক্লাস থ্রি ফোরের এর বাচ্চারাও সাস্ট কে ডেটিং এর জন্য উপযুক্ত জায়গা মনে করে।

(৩) প্রায়ই দেখি বাইরের ছেলেরা ঘুরতে এসে আমাদের ক্যাম্পাসের মেয়েদেরকে ইচ্ছামত টিজিং করে, আর আমরা দর্শক হয়ে তা দেখি।

(৪) একবার সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রোগ্রাম ছিল সেন্ট্রাল অডিটোরিয়াম এ, পলিটিকাল সবাইকে ২য় তলায় জায়গা দেওয়া হয়েছিল। হঠাত দেখি একটা ছেলে সিগারেট খাচ্ছে, আমার এক ফ্রেন্ডকে বললাম কি করা যায়, তখন সিগারেট খোরকে জিজ্ঞেস করলাম ভাই আপনি কি ক্যাম্পাসের?? উত্তর দিল, না, বাইরের।। বিনয়ের সাথেই বললাম সিগারেট টা ফেলেদিন।

সিগারেট ফালানো ত দূরের কথা, উলটা আরো ফুক ফুক করে টানতে থাকলো।

(৫) প্রায়ই টং এ বসলে দেখি বাইরের ছেলেরা বড় গ্রুপ নিয়ে আড্ডা দেয়, রাত দশটা এগারোটা পর্যন্ত বিভিন্ন টং এ চলে বহিরাগতদের আড্ডা । সেখানে একা একা হেটে যাওয়াও অনেক সময় নিরাপদ নয়।

(৬) কয়দিন আগে লেডিস হলের ছাদের গ্রিল কেটে চুরি হয়েছে, ৫ বছর ক্যাম্পাসে আছি। বহুবার লেডিস হলে  যাওয়ার পরেও কয়টা গেইট সেটা বলতে পারব না। সেখানে বাইরের কেউ ৪ তলার গ্রিল কেটে হুট করে কিছু চুরি করবে, সেটা কিভাবে সম্ভব?? এজন্য সিকিউরিটি গার্ডদেরকে নিয়মিত অবজার্ভ করা উচিত।।

(৭) আজ আমার ক্যাম্পাসে ড.জাফর ইকবাল স্যারকে কুপিয়ে গেল, যেখানে পুলিশ, ছাত্র, শিক্ষক উপস্থিত ছিল।। সব সময় স্যারের সাথে পুলিশ থাকে।। তবুও কিভাবে একজন জঙ্গি কুপিয়ে গেল? এত সিকিউরিটি থাকার পরেও স্যার যেখানে নিরাপদ নয়, সেখানে আমার মত সাধারণ শিক্ষার্থী কিভাবে নিরাপদ থাকবে???

শাবিপ্রবির একজন স্টুডেন্ট কে বাইরের সকল মানুষ আলাদাভাবে সম্মান করে, কিন্তু আমার ক্যাম্পাসের এই দশা কেনো??

আমি কি শুধু পড়তে আসছি এখানে???

আর কি কোন দায়িত্ব নেই??

একটা কথা মাথায় রাখা উচিত, আমার ক্যাম্পাস রক্ষার দায়িত্ব আমি, আমার, আমাদের সকলের।

 

লেখক পরিচিতি:  মো: আবু মুসা ,

শিক্ষার্থী, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

নৃবিজ্ঞান বিভাগ, মাস্টার্স ১ম সেমিস্টার।

লেখাটি  সাস্টনিউজের খোলাকলম বিভাগে প্রকাশিত। এ বিভাগে প্রকাশিত সকল মতামতের দায়ভার লেখকের।  আপনার  সুচিন্তিত মতামত  কিংবা প্রবন্ধ (৩০০ শব্দের উর্ধ্বে) পাঠাতে পারেন  sustnews24@gmail.com ঠিকানায়

 

 

 

Share via email

ক্যাটাগরি অনুযায়ী সংবাদ

এই সংবাদটি ৬ মার্চ ২০১৮ইং, মঙ্গলবার ২৩টা ৩৬মিনিটে মতামত, সর্বশেষ ক্যাটাগরিতে প্রকাশিত হয়। এই সংবাদের মন্তব্যগুলি স্বয়ঙ্ক্রিয় ভাবে পেতে সাবস্ক্রাইব(RSS) করুন। আপনি নিজে মন্তব্য করতে চাইলে নিচের বক্সে লিখে প্রকাশ করুন।

Leave a Reply

120 x 200 [Sitewide - Site Festoon]
প্রধান সম্পাদক: সৈয়দ মুক্তাদির আল সিয়াম, বার্তা সম্পাদক: আকিব হাসান মুন

প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার প্রধান সম্পাদকের। Copyright © 2013-2017, SUSTnews24.com | Hosting sponsored by KDevs.com