360 x 130 ad code [Sitewide - Site Header]

নিজেদের সাংগঠনিক দক্ষতার পরিচয় দিল ‘দিক’

Share via email

কর্ণ:

13151434_1165047510184974_4786704325460428297_n

শাবিপ্রবির অন্যতম নাট্য সংগঠন ‘দিক থিয়েটার’। একটি একটি করে মোট ২৩টি প্রযোজনা, ৭৩টি পরিবেশনা করে মঞ্চে শক্ত ভীত গড়ে নিয়েছে তারা। কিন্তু থিয়েটার মানে শুধুই অভিনয় নয়, থিয়েটার একটি সংগঠনও। এতদিন মঞ্চের ‘দিক‘কে চিনত সবাই। সম্প্রতি শেষ হওয়া নাট্যোৎসবের মাধ্যমে তাদের সাংগঠনিক দক্ষতারও পরিচয় পেল শাবিপ্রবি ক্যাম্পাস।

মে ১২ থেকে মে ১৫ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হল ‘দিক নাট্য উৎসব ও পুনর্মিলনী – ২০১৬’। এতে ‘দিক‘ এর নিজস্ব পরিবেশনা ছাড়াও ছিল ঢাকার দু’টি দল ‘মহাকাল নাট্য সম্প্রয়দায়’ ও ‘প্রাঙ্গণেমোর’ এর পরিবেশনা।

এছাড়াও ‘দিক‘ এর কর্মীদের জন্য অন্যতম আকর্ষণ ছিল পুনর্মিলনী, যেখানে ‘দিক‘ এর প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্যসহ অনেক প্রাক্তন ও আজীবন সদস্যের সাথে বর্তমান সদস্যদের পরিচয় ঘটে। উল্লেখ্য, নাটকের পরিবেশনা শেষে মে ১২ তারিখে সদস্যদের উপস্থিতিতে ছোট আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে এগারো জন নতুন আজীবন সদস্য ঘোষণা করে ‘দিক থিয়েটার’। পুনর্মিলনীর মূল আকর্ষণ সাংস্কৃতিক সন্ধ্যায় ‘দিক‘ এর কর্মীরা নেচে গেয়ে আনন্দ উৎসবের মধ্য দিয়ে দিনটিকে স্মরণীয় করে তোলে।

মে ১৪ ও মে ১৫ তারিখে পরিবেশনা শেষে নাটকের নির্দেশক ও অন্যান্য গুণীজনদের উত্তরীয় ও ক্রেস্ট দিয়ে বরণ করে নেয় দিক থিয়েটার।

প্রথমে নাট্য পার্বণ ও তারপর নাট্যউৎসবের পর ‘দিক থিয়েটার‘ এর পরবর্তী বড় আকর্ষণ কী এমন প্রশ্নের জবাবে ‘দিক থিয়েটার‘ এর সহসভাপতি খন্দকার মাহমুদুল হাসান জানান আপাতত বড় কোন কিছু নিয়ে চিন্তা নেই তাদের, লক্ষ্য শীঘ্র পূর্বনির্ধারিত বনভোজনের আয়োজন করা। একই প্রশ্ন করা হয়েছিল ‘দিক থিয়েটার‘ এর সভাপতি আসাদুজ্জামান নয়ন কে, তিনি জানান, ‘বর্তমান পরিষদের মেয়াদ শেষের দিকে। তাই অতি দ্রুত আরেকটি বড় আয়োজনের পরিকল্পনা নেই। তবে বৃহৎ পরিকল্পনা হিসেবে আছে ক্যাম্পাসের থিয়েটার চর্চাকে পেশাদারী পর্যায়ে উন্নীত করা।’

কথা হচ্ছিল ‘দিক নাট্য উৎসব ও পুনর্মিলনী – ২০১৬’ এর আহ্বায়ক মো রিফাত হোসাইন এর সাথে। সাস্টনিউজ এর পাঠকদের জন্য সেই সংক্ষিপ্ত আলাপ তুলে ধরা হল –

সাস্টনিউজ: প্রতিটি আয়োজনে সফলতা ও ব্যর্থতা মিশ্রিত থাকে। এই নাট্যোৎসবে ব্যর্থতার পরিমাণ কতখানি?
রিফাত: এটা সত্য যে সবসময় যা পরিকল্পনা করা হয় তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না নানা কারণে। তবে এই নাট্যোৎসব সম্পূর্ণভাবে সফল হয়েছে বলে আমি বিশ্বাস করি। উৎসবের আয়োজন কমিটির প্রতিটি কর্মী নিজের সর্বোচ্চ দিয়ে খেটেছে। আমরা যা পরিকল্পনা করেছিলাম তার সম্পূর্ণই বাস্তবায়ন করতে পেরেছি। উৎসবের আয়োজন নিয়ে আমাদের আফসোস নেই। কারণ আমরা বাস্তব পরিস্থিতি চিন্তা করে এগিয়েছি, কল্পনাপ্রবণ হয়ে অতিরিক্ত কিছু করতে চাই নি। শাবিপ্রবির একটি সংগঠন, একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরিচালনায় ও অংশগ্রহণে একটি থিয়েটারের সকল সীমাবদ্ধতা, একটি নাট্যোৎসব ও পুনর্মিলনী আয়োজনের বাস্তবতা, সকল কিছু মাথায় রেখে আমরা পরিকল্পনা করেছি, সেই মত অগ্রসর হয়েছি, এবং সফল হয়েছি।

সাস্টনিউজ: শাবিপ্রবির প্রথম নাট্য সংগঠন ‘থিয়েটার সাস্ট‘কে এই নাট্যোৎসবে নাটক মঞ্চায়ন করতে দেখা যায় নি, সিলেটের অন্য কোন থিয়েটারকেও নাটক মঞ্চায়ন করতে দেখা যায় নি। এর কারণ কী?
রিফাত: ঐ যে বললাম আমরা সকল সীমাবদ্ধতা মাথায় রেখে অগ্রসর হয়েছি; সেই সকল সীমাবদ্ধতার অন্যতম ছিল আর্থিক ও একাডেমিক শিডিউল ম্যানেজের সীমাবদ্ধতা। দিকের কর্মীরা সকলেই প্রথমে শিক্ষার্থী, এরপর থিয়েটার কর্মী। এরকম বড় একটা আয়োজনে অনেক কর্মীর সার্বক্ষণিক সাহায্য প্রয়োজন। সাত দিন বা দশ দিন ব্যাপী নাট্যোৎসব আয়োজন করতে গেলে সেসকল কর্মীকে ক্লাস মিস দিতে হত। এছাড়াও এদের অনেকেরই পরীক্ষা চলছে। তাছাড়া আর্থিক সীমাবদ্ধতার কথা তো আগেই বলেছি। যার কারণে আয়োজনটিকে অনেক ছোট করতে হয়েছে। এর ফলে মনেপ্রাণে চাইলেও আমাদের বন্ধুপ্রতিম সংগঠন ‘থিয়েটার সাস্ট‘ কিংবা সিলেটের আর কোন থিয়েটারকে আমরা আমন্ত্রণ জানাতে পারি নি।

সাস্টনিউজ: আয়োজন ছোট করতে হলেও ঢাকার দু’টি দল না এনে ক্যাম্পাসের এবং সিলেটের দু’টি দল আনা যেত।
রিফাত: কথাটি যুক্তিসঙ্গত। ঢাকার দল আনার পেছনে আমাদের একটি বৃহৎ উদ্দেশ্য কাজ করেছে। বাংলাদেশের মঞ্চনাটকের চর্চা এখনও ঢাকা কেন্দ্রিক। ঢাকার বাইরে ভালো থিয়েটার নেই তা নয়। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ এখনও সারা দেশের থিয়েটারগুলোর বিবেচনায় মঞ্চ নাটকের অগ্রদূত হিসেবে ঢাকার দলগুলোকে চেনে। আমরা থিয়েটারকর্মীরা সবসময়ই বলি থিয়েটারের অন্যতম অংশ হল দর্শক। শাবিপ্রবির অনেক নাট্যানুরাগী দর্শক তথা শিক্ষার্থী আছেন যাদের পক্ষে সম্ভব হয় না ঢাকায় গিয়ে মঞ্চনাটক দেখার। তাদের কথা মাথায় রেখে, তাদের তৃপ্তি দেবার উদ্দেশ্যে আমরা ঢাকার দু’টি দলকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। এছাড়াও, কয়েক মাস আগে ‘সম্মিলিত নাট্য পরিষদ, সিলেট’-এর আয়োজনে হয়ে যাওয়া নাট্যোৎসবে আমরা ‘আওরঙ্গজেব’ নাটকটি দেখেছিলাম। তখনই আমরা মনে মনে চেয়েছি, নাটকের রচয়িতা ও নির্দেশক নাটকের মাধ্যমে যা বলতে চেয়েছেন, সেই বার্তা শাবিপ্রবির দর্শকদের কাছেও পৌঁছাক।

সাস্টনিউজ: ধন্যবাদ আপনাকে।
রিফাত: আপনাকেও ধন্যবাদ।

এই নাট্যোৎসবের পর সাংগঠনিক পারদর্শিতা ধরে রাখার এবং নাটকের মানোয়ন্নের ব্যাপারে দায়িত্ব বেড়ে গেল ‘দিক থিয়েটার‘এর। সেই চ্যালেঞ্জ কতখানি সামাল দিতে পারে তারা, সেটিই এখন দেখার বিষয়।

Share via email

ক্যাটাগরি অনুযায়ী সংবাদ

এই সংবাদটি ১৭ মে ২০১৬ইং, মঙ্গলবার ৯টা ৩৩মিনিটে দিক থিয়েটার, শীর্ষ সংবাদ, সংগঠন, সর্বশেষ ক্যাটাগরিতে প্রকাশিত হয়। এই সংবাদের মন্তব্যগুলি স্বয়ঙ্ক্রিয় ভাবে পেতে সাবস্ক্রাইব(RSS) করুন। আপনি নিজে মন্তব্য করতে চাইলে নিচের বক্সে লিখে প্রকাশ করুন।

মন্তব্যসমূহ

120 x 200 [Sitewide - Site Festoon]
প্রধান সম্পাদক: সৈয়দ মুক্তাদির আল সিয়াম, বার্তা সম্পাদক: আকিব হাসান মুন

প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার প্রধান সম্পাদকের। Copyright © 2013-2017, SUSTnews24.com | Hosting sponsored by KDevs.com